একটি খুনের গল্প – উমর ফারুক

 

[post-views]

 

[printfriendly]

 

দুপুরে সূর্য টা মাথাতে দেই রোদ
আমি হয় নির্বাক অন্ধ
কোন পথে ছুটে যায় মানুষের জন্য
রাখিনা পথ কভু বন্ধ।
পৃথিবীটা তেতে উঠে সূর্যের আলো তে
ডুবে যায় কারো ভরা নৌকা
হিসেবের খাতা লেখা নিয়ে  ফর্দ
বয়ে যায় বিকাশের নৌকো।
একদিন রাত ভারী বিষ্মিত মে মাস
হাত জোড়া এক করে দাঁড়াল
‘বাবু সাব, শুনে নিল তার যত কাকুতি
ব্রেন ছিল তার খুব ধারালো।
সংক্ষেপে বলা হয় চাহিদা কত তার
নির্জন রাতে কত হুমকি
প্রতিকূল না থাকায় বজ্র তার কন্ঠ
ফেঁপে ওঠে রাগ তার কম কী!
টুটি চেপে ধরে আছে খুব জোড়ে
ঠ্যাং দুটো ফাঁক হল কিছুটা
ভাষাতে ফুটে উঠে জীবনের শেষ গান
খুনী তো মানুষ নয় কিছুটা।
চাঁদ তুই ডুবে গেলি কেন আজ এ রাতে
সুর তার টুটি থেকে হলো বের
সব কিছু মিলিয়ে যাবে আজ এই ক্ষণে
শেষ সুর ছেয়ে গেল মত ঝড়ের!
ততক্ষণ নির্জন পথ চেয়ে দেখা তার
হতাশার শেষ সুর যদিও
পুব দিকে ফাঁকা মাঠ ঝিঝিদের ডাক পড়ে
আছে এক নিষ্পাপ নদিও।
দেখেছে সে পাপ কার কেবা করে খুন
সেইদিন বিচারের দণ্ডে
কষ্টের চাপা ঘুম শেষ শ্বাস নিতে হয়
ধরা খাবে এই খুন কাণ্ডে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top