কিম্ভূত – উদয়ন গোস্বামী

 [post-views]

কাল স্বপ্ন দেখলাম যে আমি আবার স্বপ্ন দেখছি।হাতে বিছুটির ডাল নিয়ে বেলগাছে পা ঝুলিয়ে নাম্বার সিস্টেমের ক্লাস নিচ্ছি। বাচ্ছাগুলো নিচে শুন্যের সাথে একের বিয়ে দেওয়ার ব্যর্থ চেষ্টা করে চলেছে। একটা করে সম্পর্ক ভাঙছে আর আমি গাছ থেকে বেল ছিঁড়ে ছিঁড়ে ছুড়ে মারছি। পরে খেয়াল করে দেখি বেল নয়, গাছে আসলে মড়ার খুলি ঝুলছিল। বেলগাছটাও মারা গেছে অনেক আগেই। ওটা ছিল বেলগাছের ভুত।ঘুম ভেঙে গেল গন্তব্যের আগেই।জানালায় তখনও কালো।

চৌকির পাশে কিম্ভুত।আলো উঠলেই মিলিয়ে যাবে।কিম্ভুত আমার পোষা কুকুরের নাম ছিল।ছিল বলছি,কারন আর সে বেঁচে নেই।ছয় মাস আগে মারা গেছে আচমকাই।অফিস থেকে ফিরতে দেরি হলে দরজার বাইরে দাড়িয়ে থাকত।মাঝে মাঝে বাসস্টপ অবধি চলে যেত।রাস্তার হিংসুটে স্বজাতীয়দের থেকে বাঁচিয়ে আমাকে বাড়ি অবধি নিয়ে আসত।এটা ওর অভ্যাস,ভালোবাসা না দুই টুকরো রুটির ঋণশোধ, তা নিয়ে ভাববার সময় পাইনি।ব্যাপারটা আমারও অভ্যাসের মতই হয়ে গিয়েছিল।

অভ্যাস এখনো বদলায়নি।কিম্ভুত এখনও রাতে আমার পিছন পিছন হাটে।তবে একটা নতুন সমস্যা দেখা দিয়েছে ইদানিং।সেই বাস এক্সিডেন্টের জন্যই কিনা জানিনা,ব্যাটার আত্মবিশ্বাসের ভীতটা একটু নড়ে গেছে।আগে যার ভয়ে পাড়ার একটাও নেড়ি ধারেকাছে ঘেষতে সাহস পেত না, এখন সে সবচেয়ে দুর্বল ঘেয়োটার ঘরঘরানিতেই ভয় পেয়ে লুকিয়ে পড়ছে।জানি না কেন, কুকুরগুলোও ইদানিং আমাকে দেখলেই একটু অতিরিক্তি চেঁচামেচি করছে।ভুতের সাথে হাটছি বলে আমাকেও ভুত ভাবল কি ওরা?বাড়ি ফিরে আজ ব্যাটার সাথে বসতে হবে এই নিয়ে।রাতে।রাতে,নিয়মমাফিক ভোজনপর্ব সেরে কিম্ভুতকে ডেকে নিলাম।

একটা আয়নাও নিলাম সাথে।আমার ধারনা যে কিম্ভুত বুঝতেই পারেনি যে ও মারা গেছে।ও এখন প্রেত।সর্বশক্তিমান।সামান্য পাড়ার কুকুরের চমকানিতে ভয় পাওয়া মোটেই উচিত নয় ওর।বরং পথের সব বাধা বীরদর্পে সরিয়ে দিয়ে আমার পথ সুগম করে দেওয়াই ওর উচিত এখন।আয়না ধরলাম কিম্ভুতের মুখের সামনে।প্রতিবিম্ব নেই কোনও।দেখল।শুঁকল কি যেন।চাটল দুই একবার। একবার আমার মুখের দিকে তাকাল।তারপর চৌকির পায়াটা শুঁকে,তলায় ঢুকে গেল।ছড়িয়ে দেওয়া বিস্কুটের টুকরোগুলোর দিকে ফিরেও তাকাল না আর।

বাসস্ট্যান্ডে আজ আমি একা।কিম্ভুত নেই।বাড়িতেও।উপলব্দি,অভ্যাসের বাঁধন কেটে উড়ে গেছে।প্রতিবিম্ব মানে তো রাতের দুঃস্বপ্নগুলোর পুণরাবৃত্তি।কাল আসবে,পরশু, তরশু।কিম্ভুত আর আসবে না।কুকুরগুলো আজকেও চেঁচাচ্ছে।কাল সকালে আরেকবার আয়নাটা লাগবে আমার।অনেকদিন দাড়ি কামাই না।আমার ছায়াটা এখনো পড়ে কিনা খেয়াল করা হয়নি কিন্তু অনেকদিন হল।

Udayan Goswami

 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top