খেতে না পাওয়া কিশোরীর অ্যাকাউন্টে হঠাৎ ১০ কোটি টাকা, হতভম্ব সবাই – সিদ্ধার্থ সিংহ

– 

[post-views]

নুন আনতে পান্তা ফুরোয় এমন এক কিশোরীর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে হঠাৎ প্রায় ১০ কোটি টাকা জমা পড়েছে। এটা জানতে পেরে‌ শুধু ওই কিশোরীই নয়, হতভম্ব হয়ে গেছে গোটা পরিবার।
ওই কিশোরীটি কোনও দিন স্কুলে যায়নি। কেবলমাত্র নাম সই করতে পারে। তার বাবা আমেদাবাদের একটি গ্যারেজে কাজ করেন।
ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের বালিয়া জেলার রুকুরপুরা গ্রামে। ওই গ্রামের সরোজ নামের বছর ষোলোর এক কিশোরী গত দু’বছর আগে একটি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট খুলেছিল বাঁশডিহর এলাহাবাদ ব্যাঙ্কে।
ক’দিন আগে পাস বই আপটুডেট করতে গিয়ে দেখা যায়, হঠাৎ করে ‌ ওই অ্যাকাউন্টে কোথা থেকে যেন ৯ কোটি ৯৯ লক্ষ ৪ হাজার ৭৩৬ টাকা জমা পড়েছে।
এটা দেখেই সে আকাশ থেকে পড়ে। তার পর ওই কিশোরী তার বাবা-মাকে সঙ্গে নিয়ে তড়িঘড়ি ব্যাঙ্কে যায়।
ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষ জানায়, ওই অ্যাকাউন্ট থেকে এর আগেও একাধিকবার এই রকম মোটা অঙ্কের টাকা লেনদেন হয়েছে। তবে এই লেনদেনের বিষয়ে কোনও কিছুই জানা ছিল না সরোজের। ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষ সরোজের সমস্ত কথা শোনার পরে আপাতত ওই অ্যাকাউন্ট থেকে লেনদেন বন্ধ করে দিয়েছে।
কিন্তু কী ভাবে ওই অ্যাকাউন্টে এত টাকা এল এবং এর আগেও কারা ওই অ্যাকাউন্ট থেকে লেনদেন করেছেন তা নিয়ে রীতিমতো সন্দেহ তৈরি হয়েছে। সরোজ ‌জানিয়েছে, প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার ঘর পাইয়ে দেওয়ার নাম করে কানপুরের দেহাত জেলার নীলেশ নামে এক যুবক তার কাছ থেকে আধার কার্ড, ছবি, ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট নম্বর-সহ নানান কাগজপত্র নিয়েছিলেন। এমনকী ওই ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের এটিএম কার্ডও রয়েছে ওই যুবকের কাছে। রয়েছে পিন নম্বরও।
পুলিশ এই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। সন্দেহ করা হচ্ছে ওই যুবককে। যদিও নীলেশ নামের ওই যুবকের সঙ্গে কোনও রকম যোগাযোগ করা যায়নি বলেই সূত্রের খবর। শুধু জানা গেছে, ওই যুবকের ফোন বন্ধ রয়েছে।
বাঁশডিহ থানার আইসি রাকেশ কুমার সিং জানিয়েছেন, ওই কিশোরীর অ্যাকাউন্টে কী ভাবে এই বিপুল পরিমাণ টাকা জমা হল, তা খতিয়ে দেখবে ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষ। কেউ দোষী সাব্যস্ত হলেই আইনানুগ পথে তার বিচার হবে।
সিদ্ধার্থ সিংহ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top