গর্ভবতী হয়েও বিষাক্ত সাপের মুখ থেকে মালিককে বাঁচাতে পিছুপা হয়নি সে – সিদ্ধার্থ সিংহ

কুকুর যে কতটা প্রভুভক্ত, নিজের প্রাণ দিয়ে ফের তা প্রমাণ করল দুই বছরের পিটবুল নং হর্ম। বিশ্বের সব চেয়ে ভয়ঙ্কর বিষাধর সাপ কোবরার মুখ থেকে তার মালিককে বাঁচাতে নির্ভয়ে ক্ষিপ্রগতিতে এগিয়ে যায় সে। কোবরা সাপকে বলা হয় বিষধর সাপের রাজা। তার এক ছোবলেই সব শেষ।

এরা যে পরিমাণ বিষ থলিতে জমা করে রাখে তাতে মানুষ কোন ছাড়, পূর্ণ বয়স্ক হাতিরও মৃত্যু হয় মাত্র তিন ঘণ্টার মধ্যে। সিসিটিভি ক্যামেরা থেকে জানা যায়, প্রায় চার বার বিষাক্ত কোবরাটি ছোবল মারে তার গায়ে। তবু প্রাণ থাকা পর্যন্ত সে লড়াই করে গেছে সাপটির সঙ্গে। শুধুমাত্র তার মনিব আর মনিবের পাশে শুয়ে থাকা মনিবের একরত্তি ছেলেটাকে ওই সাপের হাত থেকে বাঁচানোর জন্য।

সাপটিকে একেবারে কাবু করার পরেই আস্তে আস্তে নিস্তেজ হয়ে যায় নং। এই ঘটনাটি ঘটেছে সেন্ট্রাল থাইল্যান্ডের পাথুম থানি অঞ্চলে। কুকুরটিকে পোস্টমর্টেম করে জানা গেছে, নং হর্ম গর্ভবতী ছিল। তার পেটে ছিল ১০টি ছানা। তার মালিক বুনচার্ড পাপ্রোম তাঁর ফেসবুকে বেশ কিছু ছবি পোস্ট করেন। সেই ছবিগুলো যেমন দূর থেকে তোলা, তেমনি ঔ কিছু কিছু ছবি আবার একদম কাছ থেকে।

সেখানে দেখা যায়, নং হর্মের চোয়ালে অনেকগুলো সাপের ছোবলের দাগ। তার মানে, নং হর্ম একের পর এক সেই মারাত্মক ছোবল খেয়েও শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে গিয়েছিল, এটাই তার প্রমাণ। এ ব্যাপারে বুনচার্ড জানান, সাপের মুখ থেকে আমাকে আর আমার সন্তানকে রক্ষা করেছে নং হর্ম।

তার কাছে আমি চির ঋণী থেকে গেলাম। শুধুমাত্র আমাদের বাঁচানোর জন্য সে নিজের জীবন বাজি রেখে সাপটির সঙ্গে লড়াই করে গেছে। এবং সাপটিকে মেরে না ফেলা পর্যন্ত সে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেনি।

Siddhartha Singha

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top