চন্দ্রাবলি কথা – দেবদাস কুণ্ডু

 [post-views]

 

এই কি সেই চন্দ্রাবলি?
যার মুখ ছিল অজন্তা ইলোরার ভাস্কর্য
চোখ দুটো ছিল লম্বা টানা টানা
যামিনী রায়ের ছবির মতো
যার মুখে লেগে থাকতো শরৎতের রোদ্দুর 
যার পিঠ ছুঁয়ে থাকতো একঢাল বাদল মেঘ
এ কোন চন্দ্রাবলি?
কলেজের সেই উচ্ছল নদীটা কোথায়?
এখন চোখের নিচে প্রদীপের অন্ধকার
মিশিকালো কেশে কে যেন ছুঁয়ে দিয়েছে
রুপলি রেখার কুন্তল
মুখের চামড়ায় বালির দাগের মতো
আঁচড় কেটেছে দু একটা নির্মম রেখা
গলার স্বরে নেই সেই জলতরঙ্গ
ছিপ ছিপে অর্জন গাছে জমেছে মেদ
যে চোখে খেলে বেড়াতে বিদ্যুৎ ঝলক
এখন শীতের বেলার নিভু নিভু আলো
এ কোন চন্দ্রাবলি?
যার চুড়িদারের ওড়না উড়তো
ডানা মেলে প্রজাপতির মতো
যে পাখি হয়ে কখনো কখনো 
উড়ে যেত নীল সীমাহীন আকাশে। 
 
রুপ লাবন্য কেড়ে নিয়েছে নিষ্ঠুর রত্নাকর 
‘চন্দ্রাবলি ও চন্দ্রাবলি শোন একবার’ ।
‘ও নামে আর ডেকে না তুমি 
আমি আর সেই চন্দ্রাবলি নেই
আমি এখন শেষবেলার সৃর্যাস্তের আলো’ ।
‘তবু তুমি আমার চন্দ্রাবলি। আমার চন্দ্রাবলি ।’ 
দেবদাস কুণ্ডু

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top