নিস্তব্ধতার প্রকাশ, মুহাম্মাদ বশির আহমাদ লতিফী

নিস্তব্ধতার প্রকাশ
মুহাম্মাদ বশির আহমাদ লতিফী

আমার বাসার পাসে সাত তলা একটা বাসা ছিলো। আমি যখন চাঁদে যাইতাম তখন তাকে দেখতে পাইতাম কিন্তু তাকে চিন্তাম না যে সে কে ? আমি ওকে দেখি ও আমাকে দেখে, হাতে চোখে হালকা পাতলা কথাও হয়।এভাবে পায় এক বছর কেটে যায়। তখন আমার কোনো ফোন ছিলো না, তারও ছিলো না, তার কিছু দিন পর আমি একটা সিম কিনলাম। কিন্তু ফোন কবে কিনবো এটা নিয়ে ভাবতেই পরিক্ষার রেজাল্ট দিলো। ভালো রেজাল্ট করলাম,,, তখন একটা মোবাইল পাই ( মামার থেকে)। অামি তো অনেক খুশি৷ কিন্তু এখন তো ওর মোবাইল নাই, তাই সে আমাকে তার একটা বান্ধবীর নাম্বার দিলো, কিন্তু তার সাথে কথা না হয়ে, তার বান্ধবীর সাথেই টুকটাক কথা। এখন তার বান্ধবী ভাবছে অন্য কিছু। এভাবে আরো এক বছর কেটে গেল। তারপর আমরাও বাসা ছেড়ে চলে গেলাম, সব যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেলো কিছু দিন, তারপর আমি তাকে খুজঁতে খুজঁতে…. এর মধ্যে তার কিছু বান্ধবীর সাথেও পরিচিত হলাম। তাদের কাছে অনেক খোঁজ খবর নিলাম। কিন্তু কোনো খবর পেলাম না। কি করবো, বাধ্য হয়ে ভুলার চেষ্টা করেছিলাম, কিন্তু একদিন হঠাৎ আমার মেসেঞ্জারে কেউ একজন নক দিলো, আমার আবার একটা অভ্যাস আমি আবার অপরিচিত মানুষের সাথে কথা বলতে চাই না,বলতে গেলে ইগনোর করি। কিন্ত বার বার সালাম দিচ্ছে, ওই, হায় ইত্যাদি বলে মেসেজ দিচ্ছে।তবু ও আমি রিপ্লাই দিলাম না। বেশ কিছু দিন পর মনে হলো যে লোক টা কে রিপ্লাই দেওয়া উচিত।তারপর বললাম
আমিঃ কে, কি সমস্যা?
সেঃ কি, চিনেন না…?
আমিঃ না, কে আপনি?
সেঃ তুমি কি কাউকে অনেক ভালোবাসতে?
আমিঃ আপনি জানলেন কিভাবে, কে আপনি?
সেঃ ইলমাকে চিনেন (আমার পরিচিত)?
আমিঃ হুম, কেন?
সেঃ তাহলে আমাকে চিনেন না?
আমিঃ তখন আমি চিনতে পারছি কিন্তু না চিনার ভাব নিয়ে, আপনাকে আমি কি ভাবে চিনবো?
সেঃ আমি তোমারই সেই ভালোবাসা।
আমিঃ তখন জল ভরা চোখে বললাম সত্যি তুমি আমার সেই?
সেঃহুম, আমি তোমার সেই, আরো অনেক কথা।
এভাবে আবার আমার রিলেশন হয়ে গেল। প্রায় ৪/৫ মাস খুব ভালোই কাটলো। হঠাৎ আমাদের দুজনের মধ্যে একটা ভুল বুঝাবুঝি হলো। অনেক কথা কাটাকাটি হলো, পরে যখন ওকে নক দিতে গেলাম, দেখি সে আমাকে ব্লক করে রেখেছে। প্রায় ১ সাপ্তাহ কোন কথা হয় না। তাই অামার এক বন্ধুর কাছে কথা গুলো সেয়ার করলাম। কিন্তু মজার ব্যাপার হলো বন্ধু মেয়ে পটানোর মধ্যে P H D করা ছিল।সে বললো সমস্যা নাই ঠিক হয়ে যাবে। আমি ও ভরসা পাইলাম একটু। কিছুদিন পর জিজ্ঞেস করলাম বন্ধু কিছু করতে পারলি সে আমাকে তার সাথে কথা বলার স্কেনশট দিলো, দেখি তারা দুইজন একজন আরেক জনকে love you বলছে।
বন্ধুকে বললাম এটা কি হলো, বন্ধু বলো কিছু করার নাই। তখন নিস্তব্ধ হয়ে থাকা ছাড়া কিছুই করার ছিলো না আমার।এখনো মাঝে মাঝে অনেক কমেন্টে তাদের দুইজনের অনেক রুমান্টিকতা দেখা যায়,, আর আমি তাকে এখনো খুঁজি নিস্তব্ধতায়।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *