বসবাসের জন‍্য ধরিত্রী

বসবাসের জন‍্য ধরিত্রী
কলমে:-সুপ্রিয়া দে
——“””——-“””””””””””””””””
প্রকৃতি শুধু নেয় না তার বহুগুন আমাদের কে দিয়ে যায়।প্রকৃতি মায়ের মতো।প্রকৃতির সাথে সখ‍্যতা থাকলে পৃথিবী হয় স্বর্গরাজ‍্য। আর প্রকৃতির প্রতি বিরূপ আচরনে প্রকৃতি আপন গতিতে তার শোধ নিয়ে নেয়।প্রকৃতির সকল উপাদানই মানুষের কল‍্যাণে বা জীবজগতের কল‍্যাণে ব‍্যবহৃত হয়।
মানুষ অধিকাংশ সময় প্রকৃতির উপর নিমর্মভাবে নির্ভরশীল যেমন তেমন প্রকৃতির সকল উপাদানই নষ্ট করছে।
প্রকৃতি মাতার দানে আমরা তথা জীবজগতের প্রাণীকূলের অস্তিত্ব বিরাজমান।

প্রতিদিনের বর্জ‍্য পদার্থ সঠিক ব‍্যবহার নাকরার কারনে মাটি পানি বায়ু সবর্দা দূষিত হচ্ছে।
প্রতিদিনের বর্জ‍্য পদার্থ গুলো যদি আমরা সঠিক কাজে লাগাতে পারি বি পুনরায় ব‍্যবহাররের চিন্তা করি তাহলে প্রকৃতি থাকবে নির্মল আমাদের থাকবে সুস্থ দেহ মন।পচন যোগ‍্য পদার্থকে সার বানিয়ে অপচন যুক্ত বর্জ‍্য(যেমন প্লাষ্টিক তৈরী বিভিন্ন জিনিস) পুনরায় ব‍্যবহার ব‍্যবহার করলে মাটি পানি বায়ু দূষিত হবে না।

বর্জ‍্য পদার্থ থেকে গ‍্যাস বিদ‍ুৎ তৈরী করলে জ্বালানি চাহিদা যেমন মিটবে তেমনি প্রকৃতি ও রক্ষা পাবে।

বর্তমানে র্বজ‍্য পদার্থ প্লাষ্টিকের পাশাপাশি বিশাল ইলেকট্রনিক জিনিস যেমন টি ভি মোবাইল ফ্রিজ ইত‍্যাদি জিনিস বর্জ‍্য পদার্থে যোগ হচ্ছে নিত‍্যদিন।

একটি মোবাইল ফোন পানিতে ৫০০০ লিটার পানি দূষিত করে।যা আমাদের জন‍্য মারাত্মক স্বাস্থ্য ঝুঁকি। ই বর্জ‍্য মারাত্মক রাসায়নিক দ্রব‍্য প্রকৃতিতে মিশে প্রকৃতির সকল উপাদান বিনষ্ট হচ্ছে।

বাংলাদেশ জনসংখ্যা 162.951.560 জন।শুধু মোবাইল নাম্বারব‍্যবহার করে 170,100,000(সূত্রwikipedia)।

অধিকাংশ সময় এ মোবাইল ব‍্যবহারে অযোগ‍্য হলে তা প্রত‍্যেক্ষ ও পরোক্ষভাবে প্রকৃতিতে চলে যাচ্ছে।

এখন থেকে যদি আমরা সচেতন না হই তাহলে অদূর ভবিষ্যৎ তে আমরা পরবর্তী প্রজন্মের জন‍্য বর্জ‍্য পদার্থ রেখে যাচ্ছি।সুন্দর ধরীত্রি না।

অতিরিক্ত খাদ‍্য চাহিদার জন‍্য রাসায়নিক সার ব‍্যবহার করছি তা ও প্রকৃতির জন‍্য মারাত্বক।
মানুষ আগে প্রকৃতি নির্ভরশীল ছিলো।তাই তাদের গড় আয়ু ছিল প্রকৃতিগত ভাবে।

এখন আমরা কৃএিম জিনিস তৈরী করতেই প্রকৃতি থেকে যেমন সব আহরণ করছি ঠিক তেমনি আমাদের ব‍্যবহার্য জিনিস গুলো প্রকৃতির জন‍্য ক্ষতিকর।

তাই আসুন বর্জ‍্য পদার্থকে আবর্জনার স্তুপ তৈরী না করে রিসাইকেল বা পুনরায় ব‍্যবহারে সচেতন হই।
প্রতিদিন একটি করে গাছ লাগাই।পৃথিবীকে সবুজ ময় করে রূপ লাবন‍্যে ফিরিয়ে আনি।
প্রকৃতি জীবের জন‍্য তাই পরিবেশের সকল উপাদান ব‍্যবহারে সচেতন থাকি।মানুষের জন‍্য পৃথিবী।
পৃথিবীর জন‍্য মানুষ না।
ফুলে ফলে সুজলা শ‍্যামলা বাংলাদেশ গড়ি গাছ লাগানো মাধ‍্যমে।

প্রকৃতিকে মা ভেবে তার যত্ন নিতে হবে আমাদের সকলের।দ্বায়িত্ববোধ থেকে পৃথিবীতে পরিবেশের উন্নয়নে সজাগ হই অন‍্যকে সচেতন করি।

প্রকৃতির সকল উপাদানের পরিশোধনের কার্যকর ভূমিকা পালন শুধু মাত্র গাছ।

তাই গাছ লাগাই জীবন বাঁচায়
গাছ লাগাই ধরিত্রী বাঁচায়
ফুলে ফলে পরিবেশটাই সুন্দর করে তুলতো।আমার আপনার ভূমিকা খুবই জরুরী।নিজের জন‍্য হলেও গাছ লাগাতে চেষ্টা করি।গাছ নিধনে নিরুৎসাহিত করি।বনভূমি রক্ষা করি।বনভূমি গড়ে তুলি।আসবাবপএ তৈরীতে গাছের বিকল্প জিনিস হিসেবে ব‍্যবহারে সৌখিনতা গড়ে তুলি।এ ছোট ছোট অভ‍্যাস গুলো থেকেই প্রকৃতি রক্ষা পাবে যেমন সুরক্ষা পাবে পৃথিবী।সুস্হ সুন্দর জীবন পাবো পৃথিবীর সকল প্রাণী।

সুপ্রিয়া দে (সহকারি শিক্ষক )
জীববিজ্ঞান
বিলাইছড়ি বাজার মডেল সরকারি উচ্চ বিদ‍্যালয়।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top