বিড়াল – শ্রী রাজীব দত্ত

[post-views]

সকালে উঠেই গাটা কেমন ম্যাজম্যাজ করছে অনিমেষের। ইচ্ছা না থাকলেও উপায় নেই অফিস তো যেতেই হবে। আর ঘুম থেকে উঠতে দেরি হয়ে গেছে আজকে। চটজলদি করে মাকে ফরমায়েশ করল  অনিমেষ, তাড়াতাড়ি গরম গরম দুটো ভাত, ডাল, আলু ভাজা সঙ্গে দুটো কাঁচালঙ্কা। রান্নাঘর থেকে মা চেঁচিয়ে  বলল ভাত  হয়ে গেছে কিছুক্ষণ অপেক্ষা কর আমি খাবারগুলো বেড়ে  নিয়ে আসছি। খাবার বেড়ে নিয়ে আস্তে আস্তে মায়ের হাতটা কেমন কেঁপে গিয়ে ভাতের থালা টা পড়ে গেল, মায়ের মনটাও কেমন ডাকলো, বিগত দিনগুলোর কোনদিন এরকম ঘটনা ঘটেনি তার জীবনে। তাই সে তার একমাত্র সন্তানকে বলল বাবা আজকে অফিস না গেলেই নয়। অনিমেষ বলল তুমি আর কুসংস্কারে আমাকে আটকে রেখো না তো, আমাকে যেতেই হবে আজকে আমাদের একটা গুরুত্বপূর্ণ মিটিং আছে। কোনরকম ভাত খেয়ে তাড়াতাড়ি বাইক নিয়ে বেরিয়ে পড়ল অনিমেষ। তাড়াহুড়ো করে আসার সময়, হঠাৎই রাস্তায় এক কালো বিড়াল কাটলো পথ। মনটাই কি রকম কু  ডাকল তাই অনিমেষ 2মিনিটের  জন্য দাঁড়িয়ে গেল। আর এমনি একটু লেট হয়ে গেছে আজ । দশটা দশের লোকাল টা আর ধরা গেল না।
অনিমেষ এক রাশ  গালাগাল আর মন খারাপ উগরে  দিলো সেই বিড়ালটাকে। অফিসে পৌঁছে বকা খেতে হোলো সিনিয়রের। কিন্তু হঠাৎই খবর এলো দশটা দশের লোকাল ট্রেন লাইনচ্যুত হয়েছে। শতাধিক যাত্রীর  প্রাণহানি ও শতাধিক যাত্রী আহত খবর পাওয়া যাচ্ছে।
 তাহলে বিড়ালটা কি অনিমেষের কোন ক্ষতি করল? নাকি কুসংস্কারের মধ্যেও লুকিয়ে থাকে কোনো ভালো নিশানা ???
শ্রী রাজীব দত্ত

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top