বিশ্বনাথ পাল এর কবিতা

প্রশ্ন

 

মাঝে মাঝে দমকা হাওয়ায়
গাছের ডাল ভাঙে,
খড়ো চালের মাথা থেকে পরচুলার
মতো ওড়ে আচ্ছাদন।
আমি হারমোনিয়ামে গলা সাধি
আমার জানার কি প্রয়োজন?
মাঝে মাঝে খরাত্রাণে
দুয়ারে দুয়ারে লেজ যে নাড়ে
ছোট বড় নানা মাপের কৌটো
হাঁপায় জনগণ,
আমার সোফায় ভুঁড়ি আঁটা,
বাড়ছে আজ ওজন।
তোমার চোখে গগলস্ ,
কানে ব্লুটুথ কে তোমাকে পায়?
বেকার স্বামী বাউণ্ডুলে
মাজতে বাসন গেছে ভুলে
তুমি দিচ্ছ বকা  নবাবি কায়দায় ।
তোমার মতো মানুষ পেয়ে
আমার যে কি  আজ কেলো!
ঘর সংসার ঢামাঢোলে
অনেকদিনই হল।
বলব কি আর হাঁড়ির কথা
হারার মায়ের কাছে
ঘর ভরেছে তাল কেটেছে
হিংসা  বিবাদে।
হাঁড়িই আছে
নাইকো  বিঁড়ে
ফিরে যাচ্ছে
জনগণ
তোমার  কোমল তনু
আজ যে জনু
চাইছে না আর মরণ।
রণং দেহী মন যে তারি
সস্তার ক্ষত দন্তে।
এই জীবনে  সুখ অধরা,
সুখ পাবে কি অন্তে?
আশায় থাকো

কেন এ মন

সারাটিক্ষণ
করছে বপন
ভয়ের চারা!
যাবে করোনা
ও থাকবে না
ভয় পেয়ো না
ভাই সবেরা,
আবার মাঠে
বাজার হাটে
মাস্ক যে লাটে
উঠবে তাই–
নিকট দূরে
কেমন করে
থাকবে সরে
সুর শানাই।
মন ভোমরা
ছন্দের তাড়া
সুর অধরা
থাকবে নাকো।
ফিরবে দিন
শুধবো ঋণ
হব না ক্ষীণ
আশায় থাকো।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top