মাছের মৃত্যুতে দেশজুড়ে শোক – সিদ্ধার্থ সিংহ

 2 total views

মাত্র একটি মাছের মৃত্যুতে গোটা দেশ জুড়ে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। প্রেসিডেন্ট থেকে শুরু করে বিরোধী‌ দলের নেতা-সহ সাধারণ খেটেখাওয়া মানুষ— সর্বস্তরের লোকই শোকে একেবারে মূহ‌্যমান। কোথাও মোমবাতি জ্বালিয়ে শোক পালন করা হচ্ছে, কোথাও মৌন মিছিল। তার মৃত্যু যেন কেউই মেনে নিতে পারছেন না।
আফ্রিকার দক্ষিণাঞ্চলীয় দেশ জাম্বিয়ার দ্বিতীয় বৃহত্তম বিশ্ববিদ্যালয় কপারবেল্ট ইউনিভার্সিটির (সিবিইউ) একটি পুকুরে থাকত এই মাছটি। বয়স হয়েছিল প্রায় ২২ বছর। এর মধ্যে ওই পুকুরেই মাছটির কেটেছে কমপক্ষে ২০ বছর। তার নাম ছিল— মাফিশি। স্থানীয় বেম্বা ভাষায় মাফিশি শব্দের অর্থ ‘বড় মাছ’। সেই মাছটিই মারা গেল ২০২০ সালের সেপ্টেম্বর মাসে।
আসলে জাম্বিয়ার ওই সিবিইউয়ের শিক্ষার্থীদের কাছে মাছটি ছিল সৌভাগ্যের প্রতীক। অনেকেই সহজ প্রশ্নপত্র পাওয়ার জন‌্য পরীক্ষার হলে ঢোকার আগে এই মাছটাকে দর্শন করে যেত। মনে মনে মানত করত, পরীক্ষায় ভাল‌ নম্বর পেলেই মাফিশিকে এই খাওয়াব, সেই খাওয়াব। কেউবা স্রেফ ভালবাসা থেকেই মাফিশির খোঁজখবর নিত।
কপারবেল্ট ইউনিভার্সিটির দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী এডউইন নাম্বো তো প্রকাশ্যেই বলেছেন, এই মাছটি আরও অনেকের মতো তাঁর কাছেও ছিল টেনশন থেকে মুক্তি পাবার একমাত্র ওষুধ। মাফিশিকে সাঁতরা কাটতে দেখলে কিংবা জলের  মধ্যে খেলে বেড়াতে দেখলে মনের মধ্যে এমনিই একটা প্রশান্তি চলে আসত।
মাছটির শোকেএকদম ভেঙে পড়া ওই ইউনিভার্সিটিরই ছাত্র ইউনিয়নের প্রেসিডেন্ট লরেন্স কাসোন্দে বলেছেন, মাফিশির মৃত্যুর কারণ এখনও জানা যায়নি। তবে তদন্ত চলছে। তিনি আরও জানিয়েছেন, মাছটির মৃত্যুতে বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা সবাই মিলে তার বিশাল ছবির সামনে মোমবাতি জ্বালিয়ে তার আত্মার শান্তি কামনা করেছেন। ফুল দিয়েছেন। মৌন মিছিলও করেছেন।
এখনও মাফিশির মৃত্যুতে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে গভীর শোক জানিয়ে তাঁদের কাছে বার্তা আসছে। তিনি জানান, তাঁরা মাছটির মরদেহ সংরক্ষণের পরিকল্পনা করছেন।
জাম্বিয়ার প্রেসিডেন্ট এডগার লুঙ্গু এক শোকবার্তায় ফেসবুকে লিখেছেন, প্রাণীর প্রতি মানুষেরা কেমন আচরণ করছেন তা দেখেই একটি জাতির মহানুভবতা ও নৈতিক অগ্রগতি মূল্যায়ন করা সম্ভব। মাফিশিকে উদ্দেশ করে তিনি লেখেন, ‘তোমার জন্য আমাদের মন পুড়বে।’
শুধু প্রেসিডেন্টই নন, প্রধান বিরোধী দলের নেতা হাকাইন্ডে হচিলেমা বলেছেন, ‘মাফিশির মৃত্যুতে সিবিইউয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতি আমরা সহমর্মিতা জানাচ্ছি।’
একমাত্র জাম্বিয়া ছাড়া আজ পর্যন্ত পৃথিবীর আর কোনও দেশেই শুধুমাত্র একটি মাছের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে এ ভাবে সর্বস্তরের মানুষকে শোকে মুহ্যমান হতে দেখা যায়নি। এমন ঘটনা সম্ভবত এই প্রথম, এই-ই শেষ।
0 - 0

Thank You For Your Vote!

Sorry You have Already Voted!

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top