আলো – শম্পা সাহা

আলো – শম্পা সাহা

রণির মন খারাপ, এত করে বলল বাপিকে বাজি কিনে আনতে, কয়েটা চড়কি, তুবড়ি, রং মশাল এইসব, শব্দবাজি তো চায়নি, আর বাড়ি সাজানোর  জন্য  টুনির মালা।  বাপি শুধু কয়েকটা প্রদীপ আর মাত্র দুটো টুনির মালা এনেছে । ধুর্! প্রতিবার কত সুন্দর করে দীপাবলি হয়  !
    ছেলের মুখ গোমড়া  দেখে সাত্যকি  বলেন, “মন খারাপ কেন রণিবাবু? মা লাড্ডু বানিয়েছে ,তাও খেলে না দেখলাম! “,”আমার ভালো লাগছে না”, রণি  মুখ নিচু করে,  “সেটাই তো জানতে চাইছি, কেন ভালো লাগছে না?”,”প্রতিবার কত বাজি পোড়াই,কত লাইট লাগাই , আর এবার মাত্র দুটো  টুনি,  বাজিও আনোনি ? দীপাবলি মানেতো আলোর উৎসব! “,”কেন এই তো সারা বাড়িতে আলো! “,লাইটিং কই? মাত্র দুটো! ‘
     “আমার সঙ্গে  আয়”,সাত্যকি  ছেলেকে নিয়ে ছাদে যান । হেমন্তে বেশ ঠান্ডাঠান্ডা ভাব, আঙ্গুল তোলেন একটা বাড়ির দিকে ,বাড়ির বারান্দায় একটা টিমটিমে আলো আর ঘরের ভেতরেও তাই । উঠোনে তুলসী তলায় শুধু প্রদীপ । “এটা কাদের বাড়ি  জানিস? “,”বারে !জানব না কেন? ওতো আশিষদের বাড়ি!” ,”ওদের বাড়িতে কি আমাদের থেকেও বেশি আলো? “,”না ,কি করে হবে? ওর বাবার তো চাকরি নেই! “,” ওদের  দুঃখের দিনে, বেশি আলো দিয়ে আমাদের বাড়ি সাজানো কি ভালো দেখায়? ওতো তোর বন্ধু !”, রণি এবার বাবার কথাটা বুঝতে পারে , বলে, “ঠিক বলেছ বাবা! আমার আর আলো লাগবে না এই আলোতেই হবে “,বলে ছোটে রান্নাঘরের দিকে, “মা একটা লাড্ডু দাও না….। “
শম্পা সাহা
Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply