নাসার ৯ লাখ টাকা মাইনের পদপ্রার্থী ৯ বছরের বালক – সিদ্ধার্থ সিংহ
নাসার ৯ লাখ টাকা মাইনের পদপ্রার্থী ৯ বছরের বালক

নাসার ৯ লাখ টাকা মাইনের পদপ্রার্থী ৯ বছরের বালক – সিদ্ধার্থ সিংহ

  • Post category:প্রবন্ধ
  • Post comments:0 Comments
  • Post last modified:December 5, 2020
  • Reading time:1 mins read

লোক নেওয়া হবে বলে মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করেছিল। ‘প্ল্যানেটারি প্রোটেকশন অফিসার’ নামের ওই পদের বার্ষিক বেতন ছয় অঙ্কেরও বেশি। তার সঙ্গে রয়েছে অন্যান্য সুযোগ-সুবিধাও।
নাসার মূল লক্ষ্য হল‌, সবার মঙ্গলের জন্য কাজ করা। বহির্জাগতিক কোনও জীবাণু যাতে পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়তে না পারে, সে দিকে সতর্ক থাকা।
এ কাজে বিশেষ ভাবে নজরদারি করে নাসার ‘প্ল্যানেটারি প্রোটেকশন’ বিভাগ। এই বিভাগে কাজ করার জন্যই ২০১৭ সালের জুলাই মাসে একটি বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়েছিল।
বিজ্ঞপ্তিতে আহ্বান করা হয়েছিল উচ্চ ডিগ্রিধারী ও যোগ্যতাসম্পন্ন, মানে‌ পৃথিবীর সুরক্ষা সংক্রান্ত বিষয়ে যাঁরা কাজকর্ম করেছেন, গবেষণা‌ করছেন বা এ ব্যাপারে যথেষ্ট অভিজ্ঞতা আছে, তাঁদের।
এ কাজের জন্য বেতন ঘোষণা হয়েছিল মাসে ১০ হাজার ৫৮৩ ডলারেরও বেশি। অর্থাৎ ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ৯ লাখ ১০ হাজার ১৬৬ টাকার বেশি।
সেই কাজ পাওয়ার জন্য বহু লোক আবেদন করেছিলেন।‌ আবেদন করেছিল ৯ বছরের এক বালকও। তার নাম জ্যাক ডেভিস। বাড়ি যুক্তরাষ্ট্রের নিউজার্সিতে। পড়ে ক্লাস ফোরে।
সেই চিঠিতে জ্যাক লিখেছিল—
প্রিয় নাসা,
আমার নাম জ্যাক ডেভিস এবং আমি ‘প্ল্যানেটারি প্রোটেকশন অফিসার’ পদের জন্য আবেদন করলাম। যদিও আমার বয়স মাত্র নয়, কিন্তু আমি মনে করি, এই কাজের জন্য আমি উপযুক্ত। আমি যে উপযুক্ত, এর পেছনে অনেকগুলো কারণ আছে। সেগুলোর একটি হল, আমার বোন সব সময় বলে আমি একটা এলিয়েন। তা ছাড়া আমি এলিয়েন ও মহাকাশ সম্বন্ধীয় প্রায় সব ছায়াছবি দেখেছি। ‘মার্ভেল এজেন্ট অব শিল্ড’ও আমি দেখেছি। ‘ম্যান ইন ব্ল্যাক’ও দেখে ফেলব। ভিডিও গেমেও আমি বেশ দক্ষ। আমি অল্প বয়সী ছেলে, তাই সহজেই আমি এলিয়েনের মতো করে চিন্তাভাবনা করা শিখে ফেলতে পারব।
বিনীত
জ্যাক ডেভিস
গার্ডিয়ান অব দ্য গ্যালাক্সি
চতুর্থ শ্রেণি
খুব স্বাভাবিক ভাবেই জ্যাক ডেভিসকে ওই পদে নিয়োগ করা হয়নি। কিন্তু তার সেই চিঠির চমৎকার একটা জবাব দিয়েছিলেন নাসার প্ল্যানেটারি সায়েন্স বিভাগের পরিচালক ড. জেমস এল গ্রিন। নাসার প্যাডে তিনি লিখেছিলেন—
প্রিয় জ্যাক
আমি তোমার চিঠি পড়েছি। তুমি এই গ্যালাক্সির একজন অভিভাবক (গার্ডিয়ান অব দ্য গ্যালাক্সি, মার্ভেল কমিকসের একটি বিশ্ববিখ্যাত মহাকাশ সায়েন্স ফিকশন চলচ্চিত্র)। তুমি নাসার প্ল্যানেটারি প্রোটেকশন অফিসার হতে চাও, এটা চমৎকার ঘটনা।
প্ল্যানেটারি প্রোটেকশন অফিসার পদের কাজটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। মঙ্গল গ্রহ, চাঁদ ও বিভিন্ন গ্রহাণু থেকে আমরা কিছু স্যাম্পল এনে থাকি পৃথিবীতে। এই পদের মূল কাজ হল, এই সব স্যাম্পলের ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র অণুজীবের হাত থেকে পৃথিবীকে রক্ষা করা। আমরা যেহেতু সৌরজগতের বিভিন্ন স্থানে অনুসন্ধান চালাই, তাই এই পদের আরও একটি কাজ হল, পৃথিবীর জীবাণু থেকে চাঁদ-সহ অন্যান্য গ্রহকে রক্ষা করা।
আমরা সব সময়ই উজ্জ্বল ভবিষ্যতের বিজ্ঞানী ও প্রকৌশলীদের খুঁজছি, যারা আমাদের সাহায্য করতে পারবে। তাই আশা করি, তুমি খুব ভাল ভাবে পড়াশোনা করবে আর চমৎকার ফলাফল করবে। আমরা আশা রাখি, একদিন তোমাকে নাসার কর্মী হিসেবে পাব।
বিনীত
ড. জেমস এল গ্রিন
ডিরেক্টর, প্লানেটারি সায়েন্স বিভাগ
জেমস গ্রিন শুধু চিঠি পাঠিয়েই ক্ষান্ত হননি। জ্যাক ডেভিসকে ফোনও করেছিলেন।
এর আগে ২০১৩ সালেও‌ ঠিক এ রকমই একটি ঘটনা ঘটেছিল। সে বার নাসায় চিঠি পাঠিয়েছিল ৭ বছরের একটি ছেলে।‌ তখনও নাসার পক্ষ থেকে সেই চিঠিরও জবাব দেওয়া হয়েছিল।
সিদ্ধার্থ সিংহ
Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply