আইডেন্টিটি ক্রাইসিস – পুলক মন্ডল

আইডেন্টিটি ক্রাইসিস – পুলক মন্ডল

  • Post category:প্রবন্ধ
  • Post comments:0 Comments
  • Post last modified:December 12, 2020
  • Reading time:1 mins read

 

পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ক্রাইসিস বোধহয় -‘ আইডেন্টিটি ক্রাইসিস ‘। আপনি কি করছেন, মানে আপনি বেকার না সকার! যদি বেকার হন তাহলে কেন বেকার, যদি সকার হন তাহলে কাজটা কি ; এই জানতে চাওয়াটা-ই যেন সবচেয়ে বড় জাতীয় সমস্যা।
    নিত্যদিনের এই যাপন করা জীবনে আমরা যতটা না মানুষ পরিচয়ে চিহ্নিত হই, তার চেয়ে বেশি পেশাগত বা বংশগত পরিচয়ে। কোনরকমে একবার মানুষ পরিচয়ে জন্মালেই হলো, ব‍্যাস্! তারপর থেকেই বেড়ে ওঠা নানা পরিচয়ে।
জন্মানোর সময় মানুষের ছেলেমেয়ে আর বড় হয়ে চাকরি না বেকার? মন্ত্রী না হকার? ডাক্তার না টিচার? অমুক বাবুর ছেলে, তমুক মজুরের মেয়ে! এইভাবে যে পরিচয় শুনতে শুনতে আমরা  বড় হয়ে উঠি তা কার্যত বিভেদ তৈরি করে একজনের সাথে অন্যজনের। তৈরি হয় আমিত্ব। যে আমিত্ব অন্যের আইডেন্টিটি-কে উপেক্ষা করে, অস্বীকার করে। আমি অমুক কোম্পানির চাকুরে তাই আমার স্ট‍্যাটাস ছোটখাটো কোম্পানির চাকুরের সাথে এক হতে পারেনা কিম্বা আমি অমুক কাগজের সাংবাদিক তাই ওপর মহলে আমার দহরম-টহরম অন্য সাংবাদিকদের চেয়ে বেশি এই আত্মভরী মনোভাব কার্যত তার পেশাকেই ছোট করে। তৈরি হয় একটা বৈষম্য। আর এই বৈষম্যের মাপকাঠিতে অনেকেই  নিজের পেশা, নিজের বংশপরিচয় কিম্বা সকারত্ব-বেকারত্ব অথবা কম লেখাপড়া- বেশি লেখাপড়া ইত্যাদি  নিয়ে কেমন একটা হীনমন‍্যতায় ভুগতে থাকেন।
    একবার সুরের জাদুগর বিঠোফেন তাঁর এক বন্ধুর সাথে রাস্তায় হাঁটছেন, সেইসময় সে দেশের সম্রাট ঘোড়ার পিঠে চেপে লোকলস্কর নিয়ে যাচ্ছেন। রাস্তার দুধারে থাকা আমজনতা টুপি খুলে রাজাকে অভিবাদন জানাচ্ছেন। বন্ধু বিঠোফেনকে বললেন, ‘ শীগগিরি টুপি খোলো, না হলে সৈন্যরা তোমার গর্দান নিয়ে নেবে’। বিঠোফেন নিঃশব্দে হাঁটছেন। সম্রাট এবং সৈন্যরা একেবারে কাছে এসে গেছেন, হয়ত বিঠোফেনের গর্দান চলে যাবে এই আশঙ্কায় ভয়ে বন্ধু চোখ বন্ধ করে আভূমি নত হয়ে রাজাকে অভিবাদন জানাচ্ছেন। সেই অবস্থায় শুনতে পেলেন সম্রাট বলছেন,’ শিল্পী কেমন আছেন?’। পরে বিঠোফেন বন্ধুকে বললেন,’ রাজার মৃত্যু হলে তার ছেলে রাজা হবে, কিন্তু বিঠোফেনের গর্দান গেলে এই পৃথিবী দ্বিতীয় বিঠোফেন কোনদিন পাবেনা। তাই অভিবাদনটা এদিক থেকে নয় ওদিক অর্থাৎ রাজার দিক থেকে আসা উচিৎ’।
 শিল্পীর এই জাত-অহঙ্কার আমাদের মতো সাধারণ মানুষের না থাকুক, আত্মসম্মান বোধটা কেন থাকবে না? নিজের কাজ যতই তথাকথিত ছোট হোক না কেন, হীনমন্যতা থাকবে কেন? আমি যাই লিখিনা কেন  কিম্বা যত কমই আমার জ্ঞান থাকুক না কেন আমি যেটা তৈরি করছি সেটা নিয়ে আমার আত্মবিশ্বাস থাকবে না কেন? আইডেন্টিটি ক্রাইসিসের আপাত টিটকারি একদিন না একদিন চিরস্থায়ী মর্যাদায় রূপান্তরিত হতেই পারে, যদি আমার আত্মবিশ্বাস অটল থাকে।
 প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি কালাম বলেছেন,’ don’t read success stories, you will get only message.  read failure stories, you will get some ideas  to get success.’
পুলক মন্ডল
Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply