মাংস চুরি – শ্রী রাজীব দত্ত

Rajib Datta

 

সকাল সকাল রবিবার বাজারে গিয়ে দেখি। মাংসের দোকানে ভিড় হয়ে রয়েছে। ভাবলাম রোববারের সকালে মাংসের দোকান তো ভির হবেই। একটু কাছে যেতেই বুঝলাম এই ভিড় অন্য কারণে।
মাংসের দোকানদার একজন বয়স্ক লোক কে খুব বিশ্রী ভাবে গালমন্দ করছে।

লোকটাকে আমার চেনা লাগলো। তারপর দেখলাম এই লোক তো এই দোকানে কাজ করে। অনেক বছর ধরেই দেখছি এনাকে এই দোকানে কাজ করছে। তবে এমন কি হলো যে এত উত্তেজনার কারণ? একজন প্রত্যক্ষদর্শী কে আমি জিজ্ঞেস করলাম ঘটনাটা কি ঘটেছে? সে মহাশয় আমায় উত্তর দিলেন “এই বুড়ো ব্যাটা চুরি করেছে”। কিন্তু আমার মনে একটা সংশয় জাগল এত বয়স্ক লোক, তিনি কিনা…

হঠাৎই ওই মাংস দোকানদার দীলিপবাবু বয়স্ক লোক কে একটি চড় মারলেন । ঘটনাটা সবাই দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখছে কিন্তু কেউ কোনো কথা বলছে না। আমি আর নিজেকে ঠিক না রাখতে পেরে দীলিপবাবুর গিয়ে হাত দুটো ধরলাম।

সে চুরি করুক বা কোনো অপরাধ তার জন্য নির্দিষ্ট শাস্তি দেওয়া টা প্রয়োজনীয় তা বলে এই নয় যে তাকে মারলে সঠিক কাজ করা হবে। দীলিপবাবু প্রচন্ড ক্ষেপে গেলেন আমার উপর যেহেতু, আমি তার পক্ষ না নিয়ে সেই (চোর) বয়স্ক লোকের পক্ষে, দীলিপবাবু বিপক্ষে গেছি বলে।

তিনি বললেন ‘আপনি কি জানেন এ কি কাজ করেছে,। আমি তাকে এক কথায় উত্তর দিলাম ‘ হ্যাঁ শুনেছি কিন্তু এটা শুনিনি যে সে কি চুরি করেছে টাকা না মাংস ‘। অপর দিক থেকে কেউ একজন ওই ভিড় থেকে বলে উঠলো ‘মাংস চুরি করেছে মাংস’। আমি হতভম্ব হলাম মানুষ টাকা-পয়সা চুরি না করে আর এই দীলিপবাবুর দোকানে তো ভালো পরিমাণে টাকা থাকে কিন্তু সেসব বাদ দিয়ে উনি কেন মাংস চুরি করল।

ওই বয়স্ক লোককে আমি একটি টুলে বসিয়ে শান্ত হতে বলে জিজ্ঞাসা করলাম, দোকানে এত টাকা থাকতেও আপনি কেন মাংস চুরি করলেন?
সেই হতভাগ্য বয়স্ক লোকটি একটি বেদনাদায়ক উত্তরের মাধ্যমে আমার চোখের জল এনে দিল।

তিনি বললেন- “বাবু আমি ইচ্ছা করে চুরি করিনি, গত তিন মাস ধরে দিলীপ দা আমাকে কোন টাকা পয়সা দিচ্ছে না। বাজারে আমার প্রচুর ধার আমাকে কেউ আর ধার দেয় না। আমি আর আমার স্ত্রী কোনরকম সিদ্ধ ভাত খেয়ে দিন কাটাই ।

কিন্তু কাল জামাই ষষ্ঠী প্রথম বছর মেয়ে জামাই টা আমার বাড়িতে আসবে জামাইষষ্ঠীতে। আমি হতভাগ্য বাবা ওদের জন্য সামান্যটুকু আয়োজন করতে পারছিনা, অনেকবার বলা সত্বেও দিলীপ দা তবুও টাকা পয়সাও দিচ্ছে না। তাই অবশেষে আমি বাধ্য হয়ে…”

তাকে আমি থামিয়ে দিলাম, আর দিলীপ বাবুকে বললাম দাদা মাংসের দাম কত? এবং আমি সেই ভদ্রলোকের টাকা পরিশোধ করলাম। ইতিমধ্যে ওই হট্টগোলের যারা দর্শক আসন গ্রহণ করে উন্মাদনায় মেতে ছিলেন। সেই ভদ্র সম্প্রদায় একে একে এখান থেকে সরে গিয়েছেন।

সেই ঘটনার পর থেকে আজও সেই বয়স্ক ‘মাংস চোর’ ভদ্রলোক কে আমি দেখতে পাইনি।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *