Amitava Mukhopadhyay

 14 total views

সবুজের গল্প
———————-
অমিতাভ মুখোপাধ্যায়

সবুজ পাতাদের সংসারে শিউলির বেশী দিন ভালো লাগছিলো না. পাশে জবাকে কানে কানে একদিন জিজ্ঞাসা করলো, তোমার বারো মাসই খুব কদর. আমার তো শরৎ কাল ছাড়া ফোটার উপায় নেই–কী করা যায় বলোতো? জবা বললো, আমার রঙ লাল বলে সব পূজা তেই আমি আছি. তবে শিব ও নারায়ণ -এর পূজাতে বোধহয় আমাকে প্রয়োজন পড়ে না. ঠাকুর মশাই কী করেন তা তো জানার উপায় নেই. তাতো ঠিকই শিউলি বললো. জবা বললো, দেখো এই বাগানে বেল আছে, জুঁই আছে, গোলাপ আছে. টগর আছে, হাস্নুহানা আছে.
শিউলি বললো, দেখেছো এখন তোমারই কত রঙ বদল হয়েছে. সাদা, গোলাপী, হলুদ, শ্বেতচন্দন বর্ণ. আরও কত কী দেখার বাকী আছে কে জানে?

-গোলাপ এর দেমাক চিরকালই ছিল. ভালোবাসার প্রতীক হিসেবে. তবে রজনী গন্ধা ওর দেমাক ভেঙে দিয়েছে. জন্ম -মৃত্যু সবেতেই ও আছে. যে কোন আনন্দ অনুষ্ঠানে ও অপরিহার্য.
এটা তুমি ঠিকই বলেছো, জবা বললো,
তাই তোমার দুঃখ করা সাজে না.
ইদানীং নয়নতারারও খুব কদর হয়েছে.
ঠিক বলেছো,
শিউলি বললো,
আচ্ছা, নীল অপরাজিতার আস্পর্ধাটা একবার দেখেছো, ওকে প্রতি বছরই নিষেধ করি, আমার গা বেয়ে ওরকম উঠিস না. ও তা শুনবে না.
জবা বললো, তা কী করবে বলো? ওর তো একটা অবলম্বন চাই.
তা তুমি ওকে প্রশ্রয় দাও বলেই ওঠে. তুমি ওর সঙ্গে মিতালী করে নাও.
দুজনে একসঙ্গে থাকো. বেশ তো জড়িয়ে আছে, থাক না. নীল অপরাজিতা আর সাদা শিউলি.
অপূর্ব মিশ্রণ .
শিউলি বললো, আমার বাঁ পাশে রঙ্গন রয়েছে. ওও আমাকে বেশ পছন্দ করে.
তাহলে আর দুঃখের গল্প শুনিয়ে লাভ কী? একজন জড়িয়ে আছে আর একজন পাশে আছে, জবা একটু দীর্ঘশ্বাস ফেলে বললো.
একটু দূর থেকে কেতকী ওদের কথা বার্তা শুনছিলো.
সে বললো, শিউলি এই বাগানে অনেক দিন ধরে আছে. বয়সও হয়েছে. এই সুন্দর বাগানে কত পাখী আসে, এডালে ওডালে বসে গান শোনায়, নানা রঙের প্রজাপতি, মৌমাছি, কালো ভ্রমর সুখ দুঃখের গল্প শুনিয়ে যায়. সবথেকে বড় কথা ওরা পরাগ মিলন ঘটায়.
হ্যাঁ, এটা কেতকী ঠিকই বলেছে.
তাহলে আর শিউলি বা আমাদের দুঃখ করে কোনও লাভ নেই.

এদিকে আবার সন্ধ্যা নেমে এলো.ঝিঁ ঝিঁ পোকা গুলোর ডাক শুরু হলো. নাও সকলে এবার ঘুমিয়ে পড়ো.
আগামী কাল নাহয় বাকী কথা হবে.
শিউলি সকলকে বললো, শুভ রাত্রি.
অপরাজিতা বললো, আমি তাহলে তোমাকে অবলম্বন করেই বেঁচে থাকবো. শিউলি আদর করে জানালো -আজ থেকে আমিই তোমার প্রিয় বান্ধব হলাম.

অভিমানী জবা শুভেচ্ছা জানালো.
********************

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *