Md. Akabbor Ali PK

 36 total views

যে শহরের সবকিছুই ১১ সংখ্যার, ঘড়িতেও নেই ১২ টার কাঁটা।

#প্রভাষক_একাব্বর_রসায়নবিজ্ঞান

সুইজারল্যান্ডের উত্তর পশ্চিম প্রান্তের এক শহরের নাম সোলোথার্ন। পর্যটকরা এই শহরে ঢুকেই থমকে যান টাউন স্কয়ারের সামনে থাকা ঘড়ির দিকে তাকিয়ে।কারণ সোলোর্থান শহরের মূল কেন্দ্রেই দেখা মিলবে রহস্যময় এক ঘড়ির।

যা অন্যান্য ঘড়ি থেকে ভিন্ন। সাধারণত সব ঘড়িতে এক থেকে ১২টার কাঁটা থাকে। তবে সোলোর্থানের এই রহস্যময় ঘড়িতে আছে শুধু ১১টি কাঁটা। সেই হিসাবে এ শহরের ঘড়িতে কখনও ১২টা বাজে না । তবে ১২ টার কাঁটা নেই কেন?

জানলে অবাক হবেন, শুধু এ শহরের ঘড়ি নয়,
অনেক কিছুতেই ১১ সংখ্যার নিদর্শন পাওয়া যায়। যেমন- এ শহরে আছে ১১টি জাদুঘর, ১১টি গির্জা, ১১টি ঝর্ণাসহ আরও অনেক কিছু।
তবে ১১তেই কেন সবকিছু সীমাবদ্ধ হয়ে আছে শহরটি?

একাদশ শতাব্দীর গোড়ার দিকে এই নগরীতে ইলভ নামে এক জার্মান আসেন। যিনি এই নগর প্রতিষ্ঠা করেন। তার অবদানের জন্য ইলভ সোলোথার্নবাসীর সমর্থন পেয়েছিলেন। এ কারণে ইলভের নামের সঙ্গে মিলিয়ে ইলেভেন সংখ্যায় বিভিন্ন নিদর্শন তৈরি করা হয়।

সেই থেকে এই ধারা চলমান আছে। শুধু ইলভের ঘটনাই নয় ১১ সংখ্যার সঙ্গে সম্পৃক্ত অনেক ঘটনা আছে সোলোর্থানে। ১২১৫ সালে যখন এই শহরে কাউন্সিলর নির্বাচন হয় তখন ১১ জনকে নির্বাচন করা হয়েছিল।

১৪৮১ সালে সোলোথার্নকে সুইস কনফেডারেশনের ১১ তম প্রদেশ হিসেবে যুক্ত করা হয়। ওই সময় ১১ জনক শহরের রক্ষাকর্তা হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছিল।

এরপর ১৫ শতকের শুরুতে সেইন্ট আরসু গির্জা নির্মাণ করা হয়।এ গির্জায় ছিল ১১টি দরজা,১১টি জানালা,১১টি রো,১১টি ঘণ্টাসহ ১১ ধরনের পাথরের ব্যবহার।

এসব কারণেই সোলোর্থান শহরের সঙ্গে ১১ সংখ্যার সম্পৃক্ততা ৫০০ বছর ধরে। তাই এ শহরবাসীর মনে ১১ সংখ্যার প্রতি বিশেষ দুর্বলতা আছে।

এছাড়া সুইজারল্যান্ডে বার্নের পুরাতন শহর, সাধু গলের মঠ এবং মন্টি স্যান জিওরজিও সহ ১১টি ইউনেস্কো ঐতিহ্যবাহী স্থান রয়েছে।

 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *