বৃহস্পতির চাঁদে একদিন – তানজিলা সুলতানা

Tanzila Sultana

ইংরাজী ভাষায় নিজের নাম লিখুন ।

 17 total views

“অনেক জল্পনাকল্পনার পর মানুষ অতঃপর মঙ্গলে বসতি গড়ছে।মঙ্গলে মানুষ পাঠানোর প্রসেস শুরু হয়েছে ১০ বছর আগে।তখন আমার বয়স ১৮ এর নিচে ছিল বলে “এলিজিবল” ছিলাম না,তাই আমাকে পৃথিবীর অন্য বাচ্চাদের সাথে থাকতে হয়েছিল।আমার বাবা মা আর বড় ভাই গিয়েছে ১০ বছর। মঙ্গলের সাথে পৃথিবীর যোগাযোগব্যবস্থা এই ১০ বছরে একটু একটু করে উন্নত হয়েছে।তারপরও চাইলেই যোগাযোগ করা যায় না।

আমার বয়স এখন ২০।২ বছর আগেই এলিজিবল হয়েছি মঙ্গলবাসী হওয়ার কিন্তু কেন যেন ইচ্ছে হয় নি দরখাস্ত করার। পৃথিবীর যত কিছুই বদলে যাক, একটা জিনিস বদলায় নি সেটা হল মানবমন।কখন কি করে,কেন করে নিজেই জানে না।

পৃথিবী সম্পর্কে অনেক কথা শুনেছি আমার দাদীর কাছ থেকে,অনেক পড়েছি পুরাতন বই থেকে।মানুষ বসবাসের প্রথমদিকে পৃথিবী যেমন ছিল মঙ্গলেরও কি এখন সেই অবস্থা??নাকি এই ১০ বছরে মানুষ তার বারোটা বাজিয়ে ছেড়েছে?জানি না।

আমার দাদী ৬ বছর আগে মারা যান,মঙ্গলবাসী হওয়া তাঁর আর হল না।তবে দাদী বেঁচে থাকতে আমি আর দাদী মিলে ডায়েরীতে লিস্ট করতাম ওখানে গিয়ে কি কি করব তার।তবে বেশিরভাগ ইচ্ছাই ছিল দাদীর।পৃথিবীতে যেসব ইচ্ছা তার পূরণ হয় নি তা তিনি ঐ মরচে ধরা মঙ্গলে করবে ভেবেছিলেন।কিন্তু দাদী আর তার সব অপূর্ণ ইচ্ছে কে রেখে আমি কাল নীল গ্রহ থেকে লাল গ্রহে চলে যাচ্ছি। “

এতটুকুই ছিল ডায়েরীর শেষ পাতায়।২১৫৯ সালের ডায়েরী।তবে এই লেখায় তারিখ দেওয়া নেই।হয়ত লেখাটা আরও পরের।দীর্ঘ একটা যান্ত্রিক নিঃশ্বাস ফেলল শু।এখন ৩১৫৯ সাল।বৃহস্পতির একটা চাঁদে বেড়াতে এসেছে শু।তার ১৮ তম জন্মদিনের উপহার ছিল এটা বাবার পক্ষ থেকে।আর ডায়েরীটা সে এখানকার এক লাইব্রেরী তে পেয়েছে।পৃথিবী সম্পর্কে সে অনেক শুনেছে,অনেক পড়েছে।বাবা বলেছে ওটা এখন কালো গ্রহ।তবে কোনো একদিন মঙ্গলে নিয়ে যাবে বলেছে,ওটাকে বলা হয় “পৃথিবীর জাদুঘর” পৃথিবীর মানুষের ব্যবহার করা অনেক জিনিস আছে ওতে,পর্যটন গ্রহ হিসেবে ব্যবহৃত হয় এখন ওটা।শু একটা জিনিস বুঝতে পারল,অনেক কিছু বদলেছে। যেটা বদলায়নি সেটা হল মানবমন।আবেগে অনুভুতিতে এখনও পরিপূর্ণ। এই আধ-মানব আধ রবোট শরীরে তার এই জিনিসটাই বেশি ভালো লাগে।

ডায়েরীটা আগের জায়গায় রেখে দিয়ে শু হোটেলের উদ্দেশ্য রওনা দিল।বাইরে বাবা অপেক্ষা করছে। আজকেই ওদের বৃহস্পতিতে ফেরত যেতে হবে।

 

 

1 thought on “বৃহস্পতির চাঁদে একদিন – তানজিলা সুলতানা”

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *